দেশজুড়েলিড নিউজ

পদ্মা সেতু হওয়াতে মানুষের মেলবন্ধন সহজতর হবে: সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ পদ্মার বুকে নিজস্ব অর্থায়নে সেতু! যা ছিল কল্পনা প্রসূত চ্যালেঞ্জিং ও অসম্ভব। তা-ই সম্ভব করে দেখিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গত (২৬ জুন) রবিবার ফরিদপুরে মাহফিলে যোগদানের জন্য পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে যেতে মাইজভাণ্ডার দরবার শরীফের ইমাম হযরত শাহসূফী সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী মাইজভাণ্ডারী (মা.জি.আ.) এ কথা বলেন। তিনি সেতুর ওপর দাঁড়িয়ে প্রধান মন্ত্রীর দীর্ঘায়ু, শান্তি-সমৃদ্ধি ও দেশ জাতির কল্যাণ কামনা করে মুনাজাত করেন।

তিনি এক বিবৃতিতে আরো বলেন, দিন দু’য়েক আগেও পদ্মার এপাড় ওপাড়ে যাতায়ত করতে মানুষের অনেক ভোগান্তিতে পড়তে হতো। প্রায়শই সংবাদ মাধ্যমে খবর হতো পদ্মায় নৌকা, লঞ্চ ডুবিতে অনেক লোকের সলিল সমাধি ঘটেছে। কিংবা ফেরির কারণে যানজটে আটকে থাকা অ্যাম্বোলেন্সে রোগির মৃত্যু, মাছ, সবজি পঁচে, কৃষক ও ব্যবসায়ীর ব্যাপক ক্ষতি।

তিনি বলেন, আমাদের পূর্ব পুুরুষরা দ্বীনি দাওয়াতের জন্য পদ্মার ওপাড়ে যেতে অনেক কষ্ট ও ভোগান্তি সহ্য করতে হয়েছিল। আমাদের সময়ে এসে আজ থেকে সময়ের অপচয় ও ভোগান্তি থেকে মুক্তি মিললো। তার জন্য মহান আল্লাহর দরবারে শোকরিয়া আদায় করছি। পদ্মা সেতুর কারণে এই অঞ্চলের মানুষের সাথে সারাদেশের মানুষের ব্যবসায়িক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ধর্মীয় ও আত্মিক মেলবন্ধন সহজতর হবে বলে উল্লেখ করেন।

“শাহসূফী সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ মাইজভাণ্ডারী আরো বলেন, আধুনিক স্থাপত্য শৈলীতে নির্মিত পদ্মা সেতুকে নিয়ে সমগ্র জাতির ন্যায় আমিও অহংকার বোধ করছি।”

তিনি বলেন, পদ্মা সেতু আমাদের অহংকার হলেও এই সেতু নির্মাণ খুব একটা সহজ ছিল না। বিশ্ব ব্যাংক দুর্নীতির অভিযোগ এনে পদ্মা সেতু থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছিল। সেই সময় এ দেশের নাগরিক হিসেবে আমিও লজ্জিত হয়েছিলাম। পরে প্রমাণ হলো পদ্মা সেতু নির্মাণে কোনো দুর্নীতি হয়নি। এটা ছিল ষড়যন্ত্র। বাংলাদেশের নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করবেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণায় আশান্বিত হলেও শংকিত ছিলাম। তিনি পারবেন তো?

সকল ষড়যন্ত্র ও প্রতিকুল পরিস্থিতি মোকাবেলা করে অসম্ভবকে সম্ভব করে দেখিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এই জন্য ধন্যবাদ জানান হযরত শাহ্সূফী সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ মাইজভাণ্ডারী।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button