শিক্ষা

বিতর্ক চর্চায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে জেইউডিও

জাবি প্রতিনিধি: বিতর্ক একটি শিল্প হিসেবে সবার কাছে বহুল পরিচিত। সেই শিল্পকে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে ছড়িয়ে দিতে প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে জাহাঙ্গীরনগর ইউনিভার্সিটি ডিবেট অর্গানাইজেশন (জেইউডিও)।

এরই ধারাবাহিকতায় গত মার্চ মাসে ‘Break the Bias’ স্লোগানকে ধারণ করে ‘মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন’ এর সহযোগিতায় জাহাঙ্গীরনগর ইউনিভার্সিটি ডিবেট অর্গানাইজেশন (জেইউডিও)- এর আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয়েছে তৃতীয় আন্তর্জাতিক বিতর্ক প্রতিযোগিতা।সংগঠনটি এর আগে ২০২০ সালে প্রথমবারের মত জাবিতে “জেইউডিও এমিনেন্স-প্রি ইউএডিসি ২০২০” নামক আন্তর্জাতিক বিতর্ক প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছিল। আন্তর্জাতিক বিতর্ক প্রতিযোগিতা ছাড়াও সংগঠনটি “জাতীয় বিতর্ক উৎসব” সহ বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে।

ফারহান আনজুম করিম বলেন, “জেইউডিও কে এমন উচ্চতায় নিয়ে যেতে চাই যাতে পৃথিবীর সর্বত্র জেইউডিও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়কে প্রতিনিধিত্ব করতে পারে। এই লক্ষ্য নিয়ে আমরা গত মার্চ মাসে তৃতীয়বারের মত জাবিতে ‘জেইউডিও এমিনেন্স-প্রি ইউএডিসি ২০২২’ নামক আন্তর্জাতিক বিতর্ক প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছিলাম।

তিনি আরও বলেন, এই বছরই আমরা ‘১৭ তম জাতীয় বিতর্ক প্রতিযোগিতা’ আয়োজন করতে যাচ্ছি। যেখানে ৩২ টি স্কুল, ৩২ টি কলেজ ঢাকা, কুষ্টিয়া, নাটোরসহ বিভিন্ন জেলা থেকে অংশগ্রহণ করবে। যার মধ্য দিয়ে আমরা আমাদের কাজকে প্রান্তিক পর্যায়ে পৌঁছে দিতে চাই।

আহসান লাবীব জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, “বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে কিভাবে বুদ্ধিবৃত্তিক চর্চা, বিরোধী মতের প্রতি সহনশীলতা ও দ্বিমত পোষণ করেও কিভাবে সম্মান প্রদর্শন করতে হয় তার হাতেখড়ি হয়েছে এই সংগঠনের মাধ্যমে।” তবে তিনি মনে করেন সংগঠনটির বৈশ্বিক গ্রহণযোগ্যতা বাড়ানোর জন্য ইংরেজি সেশন সপ্তাহে একদিন যথেষ্ট নয়। সপ্তাহে ইংরেজি সেশন আরও বাড়ানো যেতে পারে, যার মাধ্যমে দক্ষ বিতার্কিক তৈরি করা সম্ভব বলে তিনি তার অভিমত ব্যক্ত করেন।

আতিকুর রহমান বলেন, একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিতর্ক সংগঠন থাকাটা খুবই জরুরি। জাবিতে আগে জাকসু যে ভূমিকা পালন করেছে তা কিছুটা বিতর্ক সংগঠনের অভাব পূরণ করেছে। জাকসু অকার্যকর হওয়ার পরে জেইউডিও ই কিন্তু এই বিতর্ক সম্পর্কিত যে কার্যক্রম তা বাঁচিয়ে রেখেছে। শুধু প্রথাগত বিতর্কের মধ্যেই এই সংগঠনে নিজেকে আবদ্ধ করে রাখে নাই। বিতর্কের যে নানামুখী রূপ, নানামুখী শাখা, যুক্তি, বুদ্ধি এবং জ্ঞানের যে নানামুখী চর্চা সেটা তারা দীর্ঘ দেড় যুগেরও বেশি সময় ধরে করে আসছে। বিতর্কের মাধ্যমেও যে সমাজের পরিবর্তন করা যায়, পশ্চাতপদতা, কুসংস্কার, সাম্প্রদায়িকতা এগুলোর বিরুদ্ধে জনমত গড়ে তুলার জন্য বিতর্ক যে একটা মাধ্যম হতে পারে জেইউডিও সেটা তাদের কাজের মাধ্যমে প্রমাণ করেছে। তিনি সংগঠনটির উত্তরোত্তর সাফল্যও কামনা করেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button